Page Nav

HIDE

Grid Style

GRID_STYLE

Post/Page

Popular Posts

Breaking News:

latest

বল মাথায় প্রায় ৪৫ কিমি সাইকেল চালিয়ে বিশ্ব রেকর্ড গড়ার পথে পাঁশকুড়ার মনোজ

কোলাঘাট, পূর্ব মেদিনীপুর.ইন : অভাব অনটন আর দারিদ্রতার বিরুদ্ধে প্রতিনিয়ত সংগ্রাম করেও খেলাধূলার প্রতি তাঁর অসীম প্রীতি সর্বজনবিদিত। একসময় ফুটবলের কোচ হিসেবে কেরিয়ার শুরু করতে গিয়েও পরিবারের দারিদ্রতায় তা হয়ে ওঠেনি।

তবে অদম্য ইচ্ছে…


কোলাঘাট, পূর্ব মেদিনীপুর.ইন : অভাব অনটন আর দারিদ্রতার বিরুদ্ধে প্রতিনিয়ত সংগ্রাম করেও খেলাধূলার প্রতি তাঁর অসীম প্রীতি সর্বজনবিদিত। একসময় ফুটবলের কোচ হিসেবে কেরিয়ার শুরু করতে গিয়েও পরিবারের দারিদ্রতায় তা হয়ে ওঠেনি।

তবে অদম্য ইচ্ছেকে সঙ্গী করে ফুটবল জাগলিংয়ে দ্বিতীয় বারের জন্য বিশ্ব রেকর্ড গড়ার পথে নেমেছে পূর্ব মেদিনীপুরের পাঁশকুড়া থানার বাসিন্দা মনোজ মিশ্র। বুধবার মাথায় বল নিয়ে প্রায় ৪৫ কিমি ২৫০ মিটার পথ সাইকেল চালিয়েছেন তিনি। যা এই মুহূর্তে বিশ্বের ইতিহাসে রেকর্ড বলেই দাবী জানিয়েছেন তিনি।

বুধবার সকাল ৬টা ৩৫মিনিট থেকে বল মাথায় সাইকেল চালানো শুরু করে ১১টা ৫ মিনিট সময়ের মধ্যে এই পথ পাড়ি দিয়েছেন তিনি। তবে জোরাল উত্তুরে বাতাসের জেরে এর পর মাথা থেকে বলটি পড়ে যায়। 

মনোজবাবু জানিয়েছেন, এইভাবে মাথায় বল নিয়ে ২০১৭ সালের ৮ জুন সাইকেল চালানোর শেষ ওয়ার্ল্ড রেকর্ড (গিনেশ বুক) গড়েছেন বাংলাদেশের ঢাকার বাসিন্দা আব্দুল হালিম। এদিন মনোজবাবুর রেকর্ড আব্দুল হালিমকে ছাপিয়ে গিয়েছে অনেকটাই। 

এবার রেকর্ডের ভিডিও ফুটেজ গিনেশ বুক সংস্থার কাছে পাঠিয়ে দেওয়া হবে। সব দিক খতিয়ে দেখার পরেই তাঁরা মনোজের নাম গিনেশ বুকের তালিকায় স্থান দেবেন।

এর আগে ২০১৬ সালের ১লা জানুয়ারী মনোজ মাথায় বল নিয়ে প্রায় ৪৯.১৭ কিমি পথ পায়ে হেঁটে বিশ্ব রেকর্ড গড়েছিলেন। পরে গিনেশ বুক তাঁর এই বিরল রেকর্ডকে স্বীকৃতি দিয়েছে।


মনোজবাবু জানান, আজ তাঁর লক্ষ ছিল কমপক্ষ্যে ৮১ কিমি রাস্তা  মাথায় বল নিয়ে একটানা সাইকেল চালিয়ে যাবেন তিনি। তবে প্রচন্ড বাতাসে তাঁর সেই ইচ্ছে পূরণ হল না বলে একটা আক্ষেপ থেকে গেল তাঁর মধ্যে।

কিন্তু এই রেকর্ড থেকে কি পান তিনি। মনোজবাবু জানান, ফুটবল জাগলিংয়ে তাঁর এই অনন্য প্রয়াসে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে জাগলিংয়ের জাদু দেখানোর আমন্ত্রণ পান তিনি। তবে সরকারী ভাবে কোনও সহযোগিতা তিনি আজও পাননি।

তাঁর আশা ছিল, এভাবে বিশ্বের দরবারে দেশের নাম উজ্জ্বল করার জন্য তিনি সরকারী সহায়তা পাবেন। তবে তাঁর সেই আশা ভঙ্গ হয়েছে। তবে তাতেও নিজের অদম্য লড়াই থেকে একটুও সরে যেতে নারাজ মনোজ।

No comments